মুক্তাগাছায় আগাম শিম চাষে লাভবান কৃষক

প্রকাশিত: 2:11 PM, November 21, 2020

এনামল হক, মক্তাগাছা প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় উচ্চ ফলনশীল ‘ ঝিনাইগাতী নলডোক, ইরশা, আশ্বিনা ও রূপবান’ নামের চার জাতের শিম চাষ করে লাভবান হচ্ছেন শত শত কৃষক। পাঁচ-ছয়টি গ্রামের যেদিকে চোখ যায় সেদিকই শুধু শিম ক্ষেত । রোপনের ৭০ দিনেই ফলন পাচ্ছে কৃষক। শীত শুরুর আগেই বাজারে উঠেছে শিম। ফলে আগাম ফলন পেয়ে লাভবান হচ্ছে কৃষক। চার জাতের শিমের ভালো ফলন ও আগাম বাজারে আসায় ভালো দাম পাচ্ছে চাষীরা।

মুক্তাগাছা উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্যমতে এ বছর মুক্তাগাছায় প্রায় ১০০ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের শিমের আবাদ হয়েছে। বিশেষ করে উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের মহিষতারা, সুহিলা ও বেরুলিয়া গ্রামে মাঠজুড়ে শুধুই শিম গাছের সমারোহের মাঝে হালকা বেগুনি ফুল দেখা যায়। যেদিকে চোখ যায় সেদিকই শুধু শিম ক্ষেত। এদিকে কুয়াশার আগমনে ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষকরা, আবার শিম তুলছেন কেউ কেউ। স্থানীয় বাজারে গত সপ্তাহে ১ কেজি শিমের দাম ১২০ থেকে ১৪০ টাকা দরে বিক্রি হলেও এখন কিছুটা কমে ৮০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বেরুলিয়া গ্রামের শিমচাষী সাইফুল ইসলাম বলেন, ১৪০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা দরে এবার শিম বিক্রি শুরু হয়েছে। দীর্ঘসময় ধরে এই দামটা চলমান ছিল। এতে আমরা বেশ লাভবান হয়েছি। আকশ্মিক বৃষ্টি না হলে এবার আমাদের অনেক লাভ হবে। বৃষ্টি হলে ফুলে পঁচন ধরে ফুলগুলো ঝরে পড়ে যায়। মুক্তাগাছার অন্যতম পাইকারি সবজির হাট সুহিলা, চেচুয়া এবং মুক্তাগাছা শহরের আটআনি বাজার ।

 

ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলার ক্রেতারা প্রতিদিন এখানে আসেন শিম কিনতে। পাইকারি ক্রেতারা জানান, গাজীপুর, নারায়নগঞ্জ, ঢাকা, চট্টগ্রাম, যাত্রাবাড়ী, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এখান থেকে শিম কিনতে পাইকারী ক্রেতারা আসে।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এমদাদুল হক জানায়, শিমের ফলন বাড়াতে পোকার লাভাগুলো পরিষ্কার করে দিলে এবং কিটনাশক স্প্রে করা সহ পোকা-মাকড় দমনে কৃষকদের নানা পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।