প্রখ্যাত মোফাসসির, গবেষক ও আড়াইবাড়ীর অধ্যক্ষ মাওলানা গোলাম সারোয়ার সাঈদী চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

প্রকাশিত: 12:44 PM, November 21, 2020

আল আমিন কিবরিয়াঃ

প্রখ্যাত মোফাসসির, গবেষক ও আড়াইবাড়ী সাঈদীয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হযরত মাওলানা গোলাম সারোয়ার সাঈদী (পীরসাহেব আড়াইবাড়ী) আজ ভোর ৪.১০ মিনিটে ইন্তিকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)আজ ২১ নভেম্বর শনিবার বাদ আসর আড়াইবাড়ী দরবার শরীফে তাঁর নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে ইনশাআল্লাহ ।

বাবা গোলাম হক্কানী ছিলেন দেশ বরেণ্য একজন বুজুর্গ। আড়াইবাড়ী দরবার থাকলেও তিনি ছিলেন প্রচলিত পীর বা মাজার থেকে সম্পুর্ন বিপরীত। কোরআনের দাওয়াত মানুষের কাছে পৌঁছানোই ছিলো আড়াইবাড়ী দরবারের মূল কাজ। তার মা এক মহান তাপসী খোদাভীরু মহিলা পিতার কাছেই পড়ালেখার হাতেখড়ি গোলাম সরোয়ার সাঈদীর। পরে ঢাকা আলিয়া থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রী অর্জন করেছিলেন তিনি।

তার উপস্থাপনা কৌশলটি অন্যন্যদের চেয়ে ব্যতিক্রম ও নান্দরিক ছিল। তিনি মানুষকে খোদার পথে আসার জন্য আকুতি ভরা কন্ঠে আহবান জানাতেন,রাসুলের (সা) সুন্নাহর আলোকে উদ্ভাসিত জীবনের এক অনুপম প্রতিচ্ছবি ছিলেন মুফাসসির গোলাম সরোয়ার সাঈদী। যাদুমাখা কথা আর অফুরন্ত ভালোবাসায় খুব অল্প সময়ে গোটা দুনিয়ায় তিনি পরিচিতি লাভ করেছিলেন।

সারা বিশ্বে বসবাসরত বাঙ্গালী তুমুলভাবে তার ভক্ত হতে শুরু করলো, বিগত দু এক বছর ধরেই। বিশেষ করে, করোনা মহামারির শুরুর দিকে, অন্যন্য অনেক দেশের মতো যখন বাংলাদেশেও মসজিদে জামাতে নামাজকে সীমিত করে দেয়া হয়, তখন মাওলানা গোলাম সরোয়ার সাঈদী আফসোস করে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন, যুবকদেরকে মসজিদে যাওয়ার জন্য উদ্বুুদ্ধ করে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তাই তাকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যায়। এ বক্তব্যটি ইংরেজি ও আরবিতে সাবটাইটেল করে বিভিন্ন দেশের ফেসবুক পেইজে প্রচারও হতে দেখা গিয়েছে