করিমগঞ্জে হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ধর্ষণের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল।

প্রকাশিত: 8:20 PM, October 14, 2020

মোঃ জনি হোসেন করিমগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
আমার সোনার বাংলায় ধর্ষকদের ঠাঁই নাই’ জেগেছে রে জেগেছে যুব সমাজ জেগেছে’‘ ধর্ষকদের বিরুদ্ধে লড়তে হবে একসাথে’ প্রীতি লতায় বাংলায় ধর্ষকদের ঠাঁই নাই।এই স্লোগান কে সামনে রেখে করিমগঞ্জ উপজেলায় আশুতি য়াপাড়া হিলফুলফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে নারী ও শিশু ধর্ষণের বিরুদ্ধে একঝাক স্বেচ্ছাসেবী তরুন যুবক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেন।

আজ (১৪ অক্টোবর) বুধবার দুপুর ২টার দিকে করিমগঞ্জ আশুতিয়া পাড়া হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ধর্ষণের বিরুদ্ধে করিমগঞ্জ উপজেলায় করিমগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে রোড চত্বরে অবস্থান নেয় বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা কর্মীরা।এ সময় ধর্ষণের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন-হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছা সেবী সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টিটু হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহ সভা পতি কৌশিক,হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠ নের সাধারণ সম্পাদক সারোয়ার জাহান রিজন হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের জুনিয়র আহ্বায়ক সাকিব হোসেন,হিলফুলফুজুল স্বেচ্ছা সেবী সংগঠনের সদস্য সচিব হিলফুল ফুজুল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্য মেহেদী হাসান রকসি ও যুগ্মআহ্বায়ক বৃন্দ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,ধর্ষণকারীদের কোন ধর্ম বা দল নেই।ধর্ষণকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন মৃত্যুদণ্ড।ভবিষ্যতে কেউ ধর্ষণ করার সাহস করতে যেন না পারে।ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানিয়েছে তারা।

সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টিটু বলেন ‘বোন তার ভাইয়ের সঙ্গে রিকশায় যাওয়ার পথে বোনকে প্রকাশ্যে হত্যা করা হয়, স্ত্রী তার স্বামীর সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার পর তার স্বামীকে বেধে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণ করা হয়, মা বাবাকে ঘরে তালাবন্দি করে বাক প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়।সেখানে আপনার আমার বোনের নিরাপত্তা কোথায় তাই ধর্ষণ কারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির আইন মৃত্যুদণ্ড।