দেবিদ্বারে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে আ.লীগ নেতা সহ গুরুতর আহত ৪

প্রকাশিত: 11:12 PM, May 1, 2020

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পরা মহামারি নিয়ে যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং নির্দেশনায় আওয়ামী লীগসহ সকল অংগসংগঠন ব্যস্ত ঠিক তখনই কুমিল্লা জেলাস্থ দেবিদ্বার উপজেলায় ২৭/০৪/২০২০ সোমবার ইফতারের পর এক আওয়ামীলীগ নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে একদল সন্ত্রাসী।

আহত ওই আওয়ামীলীগ নেতা হলেন দেবিদ্বার উপজেলার ২নং ইউসুফপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় দীর্ঘ ২৪ বছরের সাবেক মেম্বার, সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হাকিম। তিনি জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন বলে জানাগেছে।

খুজ নিয়ে জানা যায় আহত আঃ হাকিমকে প্রথমে দেবিদ্বার সরকারী হাসপাতাল এবং পরে আশংকাজনক অবস্থায় ঢামেক হাসপাতালে প্রেরন করেন। বর্তমানে তিনি ঢামেক হাসপালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন। এই ঘটনায় আরও তিনজন আহত হয়েছে। আহত তিনজন হলেন মোঃ নাছির উদ্দিন, মাইনুদ্দিন, মিজানুর রহমান। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

হামলার কারন জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছু একজন জানায় ৮ নং ওয়ার্ড শিবপুরের জনপ্রিয় ও দীর্ঘদিনের (২৪ বছর) সাবেক মেম্বার ও বিভিন্ন সময়ের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব আব্দুল হাকিম মেম্বার কে হত্যা করার উদ্দেশ্য ২৭এপ্রিল ইফতারের পরপর বর্তমান মেম্বার আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে রামদা-সহ দেশীয় অস্র নিয়ে ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ছবির আহমেদ ও তার ভাইয়েরা অতর্কিত হামলা চালায়।

২৮/০৪/২০২০ বিকালে দেবিদ্বার থানায় সাত জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন আহত আব্দুল হাকিম এর ভাতিজা দেলোয়ার হোসেন। মামলার আসামীরা হলেন ইউনিয়ন বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃসবির আহাম্মদ, বর্তমান ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ, মজিব সরকার, আবুল কালাম(ডিম ব্যবসায়ী), বাবুল হোসেন, মাজহারুল ইসলাম মনু, আবুল কালাম টেইলার্স, সহ অজ্ঞাত আরও ২০/২৫ জন।

মামলার বিবরন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় সোমবার বিকালে পুখুরে শেয়ারে মাছ চাষ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ইব্রাহীম ও মিজান নামে দুই জনের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। এই ঝগড়া থামাতে এগিয়ে যান ইউপি আ.লীগ নেতা আব্দুল হাকিম। তিনি উভয়কে শান্ত করে যার যার বাড়ি পাঠিয়ে দেন।

পরে ইব্রাহীমের পক্ষ নিয়ে ইফতারের পর একই এলাকার বিএনপি নেতা সবির আহম্মদ(সবুর) এর নেতৃত্বে ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী পূর্বের ঘটনাস্থলে এসে মিজানের দোকানে অতর্কিত হামলা চালায় এবং দোকানের মালামাল ভাংচুর শুরু করে। উক্ত হামলার শোরচিৎকার শুনে ঝগড়া ও ভাংচুর থামাতে আব্দুল হাকিম ছুটে এলে সন্ত্রাসী সবুরের হাতে থাকা রাম’দা দিয়ে আঃ হাকিমের মাথায় কুপদেয় ও অন্যান্যরা তার শরিরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে মারাত্বক জখম করে। স্থানীয় বিএনপির আরেক নেতা বাবুলের হাতে থাকা দা দিয়ে কুপিয়ে আহত করে মাইনুদ্দিন কে।পরে আরও যারা থামাতে এসেছে তাদেরও পিটিয়ে আহত করে সন্ত্রাসীরা। এ সময় এলাকাবাসী ছুটে এলে হামলাকারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে এলাকাবাসি আহত হাকিম মেম্বারকে উদ্ধার করে দেবিদ্বার উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুতর আহত হাকিম মেম্বারকে মুমূর্ষ অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে হাকিম মেম্বারকে (সাবেক) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান কামাল চৌধুরী বলেন মাছ চাষের শেয়ার ব্যবসার সৃষ্ট উভয় পক্ষের দ্বন্দ থামাতে গিয়ে এক পক্ষের দায়ের কুপে সবেক ইউপি সদস্য আঃ হাকিম সাহেব আহত হয়ে ঢামেক হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক।

দেবিদ্বার থানার ওসি মোঃ জহিরুল আনোয়ার জানান আঃ হাকিম আহত হওয়ার ঘটনায় তার ভাতিজা দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে মামলা করেছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ।এ পার্যন্ত দুই জনকে আটক করা হয়েছে।