বাগেরহাট জেলার মোংলা থানায় আমেরিকা প্রবাসী দিপু মৃধার ৬ষ্ঠ তম ধাপে মাস্ক বিতরণ!

প্রকাশিত: 10:16 PM, July 20, 2020

ইসমাইল হোসেন বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি:

করোনা মোকাবিলায় লড়াই করছে গোটা দেশ। নানা প্রতিকূলতার মুখোমুখি হচ্ছে,সংকট পড়ছে সুরক্ষা সরঞ্জামের। বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশেও মহামারী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর সংক্রমণ এবং মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন এনজিও সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।তারপরেও অসাবধানতাবশত অনেকে মাক্স ব্যবহার না করে স্থানীয় বাজার ও যানবাহনে চলাচল করছেন।
তাই মাস্ক ব্যবহার শতভাগ নিশ্চিত করতে ও সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মানবতার ফেরিওয়ালা আমেরিকা প্রবাসী দিপঙ্কর মৃধা দিপু খাদ্য সহায়তার পাশাপাশি ১০ হাজার মাস্ক বিতরণ করার কার্যক্রম গ্রহণ করছেন।

দিপঙ্কর মৃধা দিপু তার প্রতিনিধিদের মাধ্যমে মোংলা উপজেলার প্রায় সকল স্থানে পথচারীসহ, ভ্যান চালক, সাধারণ মানুষ এবং দোকান মালিকদের মাঝে মাঝে মাস্ক বিতরণ করছেন।

২০ জুলাই সোমবার বিকালে মোংলার পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ড এর মাকোরডোন, নারিকেল তলা,মাছ মারা ও কুমারখালী তে দিপু মৃধার ১০ হাজার মাক্স বিতরণ কর্মসূচির ৬ ষ্ঠ দিনের কার্যক্রম পালিত হয়। এ সময় ১ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হয়।

উক্ত কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবক এবং পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব আলহাজ্ব কামরুজ্জামান জসিম।আরো উপস্থিত ছিলেন মাকোড়ঢোন সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরের সভাপতি পবন ঘঠক ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্ধার্ত রায়।
দিপঙ্কর মৃধার প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-আফজাল হোসেন, মোঃ শাহ আলম,শুভ বিশ্বাস, মনোজিত সরকার ও আজিজ মোড়ল।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন-দিপু মৃধা আমেরিকা তে থেকেও আমাদের এলাকার জন্য অনেক কাজ করে যাচ্ছেন।সকলে দিপু মৃধার জন্য দোয়া করবেন।সাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে এবং মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।এই তিনটি বিষয়ের উপর তিনি সবাইকে সচেতন করেন।

অবশেষে দিপঙ্কর মৃধার প্রতিনিধি মোঃ শাহ্ আলম বলেন- করোনার প্রভাবে সারা পৃথিবীর যখন ব্যাপক উদ্বিগ্ন, ঠিক তখনি করোনা মহামারীর ছোবলে ব্যাপক আক্রান্ত দেশ আমেরিকায় থেকেও দীপু দাদা যে খাদ্য সহায়তা থেকে শুরু করে সচেতনতা বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য ডিপার্টমেন্টে-স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জামসহ মাস্ক বিতরণ করছেন তা অভাবনীয়। মোংলা উপজেলা ও মোরলগঞ্জ উপজেলার অংশবিশেষ সহ আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা দরিদ্র, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী ও করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের দোরগোড়ায় খাবার ও স্বাস্থ্য সচেতনতায় মাস্ক পৌছে দেওয়ায় আমরা চিরকৃতজ্ঞ এবং আমি দিপু দাদার এই মহত কাজটির প্রতিনিধিত্ব করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। আমার দীর্ঘ বিশ্বাস-“দাদা আমৃত্যুকাল পর্যন্ত অসহায় ও পিছিয়ে পড়া মানুষের তরী হয়ে বেঁচে থাকবে।

ইসমাইল হোসেন,
মোংলা- বাগেরহাট ।
মোবা-০১৯৫৫৭৭৭১৭২
তারিখ-২০/০৭/২০২০