রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুর হাট বসানোর সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত: 5:57 PM, July 9, 2020

এআই রবি, বিশেষ প্রতিনিধি:
রাজশাহীর বাঘা উপজেলার দুইটি পশু হাটে স্বাস্থ্যবিধি অুনসরণ করে বেচা-কেনাসহ বেশি মানুষ নিয়ে এবং বয়স্ক ও শিশুদের হাটে যাওয়া থেকে বিরত রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার (০৯ জুলাই) বাঘা উপজেলা সম্মেলন কক্ষে আসন্ন ঈদুল আযহার পশুর হাটে ও পশু কোরবানিতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষার্থে এক মতবিনিময় সভায় এ আহ্বান জানানো হয়। সভায়, নিদিষ্টস্থানে পশু জবাই এবং বর্জ্য অপসারণ, সঠিক উপায়ে চামড়া ছড়ানো বিষয়ে আলোচনা হয়। উপজেলা প্রাণি সম্পদ দপ্তরের সার্বিক ব্যবস্থাপনায়, উপজেলা প্রশাসন এর আয়োজন করে।

 

করোনা পরিস্থিতিতে সংক্রমন এড়াতে বক্তারা বলেন, যিনি কোরবানি পশু জবাই করবেন তিনি যেন প্রতিবার সাবান পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নেন। বাড়ি বাড়ি গিয়ে জবাই করার মাধ্যমে তিনিও সংক্রমণের ঝুঁকি তৈরি করতে পারেন। মাংস প্রস্তুত করার কাজে যারা জড়িত থাকবেন তারা সুস্থ কিনা সে বিষয়ে নজর দেয়া প্রয়োজন। এ ছাড়াও মাংস প্রস্তুতকারী কারো মাঝে জ্বর-কাশি বা করোনার কোনো উপসর্গ থাকলে তাকে কোনো বাসায় মাংস প্রস্তুতে না পাঠাতে কসাই সমিতির নেতাদেরকে অনুরোধ করা হয়।

 

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে স্বাস্থ্য বিধি মানার বিষয়ে সচেতন করতে ইমাম ও ওলামাদের এগিয়ে আসার আহবান জানিয়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে ইমাম-ওলামাদের উল্লেখ্যযোগ্য ভূমিকার প্রশংসা করে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. লায়েব উদ্দীন লাভলু বলেন, পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় প্রাণি সম্পদ বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পুলিশ প্রশাসন তাদের নিজেদের উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করার প্রয়োজন।

 

হাট ইজারাদারকে জীবানুনাশক ঔষধ ছিটানোসহ হাটে স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখার প্রসঙ্গে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা বলেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে সরকারের বিভিন্ন নির্দেশনা তুলে ধরেন এবং পবিত্র পবিত্র ঈদুল আযহায় পশু হাটে এবং পশু কোরবানিতে স্বাস্থ্য বিধি মানার বিষয়ে সবার সহায়তা কামনা করেন। তিনি বলেন, যারা হাটে যাবেন তাদের প্রত্যেককেই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

 

উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. আমিনুল ইসলামের সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পুলিশ অফিসার, ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও ইমাম সমিতির প্রতিনিধি, হাট ইজারাদার ছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের দপ্তর প্রধান ও প্রেসক্লাবের সভাপতি, সম্পাপদক।