বাকেরগঞ্জের শিয়ালঘূনীতে গলায় ফাস দিয়ে আত্মহত্যা করা নববধূর লাশ উদ্ধার করেন বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ!

প্রকাশিত: 1:25 AM, June 28, 2020

বরিশাল জেলাপ্রতিনিধি ///
বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নের শিয়ালঘূনী গ্রামে কুন্ডের হাট মৃতঃ জগদীশ হালদারের ছোট ছেলে স্বপন হালদারের স্ত্রী মনি (১৯) গত বৃহস্পতিবার (২৫ শে জুন) দিবাগত রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

 

নিহত রাস মনী সুপ্তধর কলসকাঠী লঞ্চঘাট সংলগ্ন চৈতন্য কৌরারের মেয়ে এবং বাকেরগঞ্জের কবাই ইউনিয়নের শিয়ালঘূনি গ্রামের স্বপন হালদারের স্ত্রী। নিহতের পারিবার সূত্রে জানা যায়,মাত্র দেড় মাস আগে পালিয়ে গিয়ে স্বপন হালদারকে বিয়ে করেন রাস মনী সুপ্তধর। বিয়ের বিষয়টি স্বপন হালদারের পরিবার মেনে না নেয়ায় শুরু হয় পারিবারিক কলহ।

 

শুক্রবার স্বপন হালদারের বড় ভাইয়ের বিয়ে সেইদিন। গৃহবধূ মনি সহ পরিবারের সবাই রাত ১২ টা পর্যন্ত বিয়ের আয়োজনের কাজ কর্ম করেন। তারপর সবাই ঘুমিয়ে গেলে সকালে নিহতের স্বামী স্বপন হালদার দেখেন বসত ঘড়ের পাকের ঘড়ের ছাউনির কাঠের সাথে ওরনা বেধে গলায় ফাস দিয়ে অতহত্না করেন। নিহত মনি’র মায়ের কাছ থেকে জানা যায়,মনি তার মা কে রাতে ফোন দিয়েছিলো তারপর মনি বললো যে তোমরা সবাই আগামীকাল আমার ভাসুরের বিয়েতে আসো। তারপর মনি’র মা বললো যে,তোর সাথে আমাদের সম্পর্ক নেই।তোর মুখ আমরা দেখতে চাইনা। তারপর একপর্যায় তারা মা ও মেয়ে কথার কাটাকাটি হয়। হয়তো সে ক্ষোভেই মনি আত্মহত্যা করে বলে জানান,স্বপন হালদারের স্বজনরা।

 

উল্লেখ্য শুক্রবার বিকেল ৪ টায় কবাই ইউনিয়নের শিয়ালঘূনী কুন্ডের হাট সংলগ্ন স্বামী স্বপনের বাড়ি থেকে মনি’র লাশ উদ্ধার করেছেন বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ।

বাকেরগঞ্জ থানার এস আই তরুন কুমার জানান,মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শেবাচিম হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলে বলা যাবে হত্যা,না আত্মহত্যা। তবে প্রাথমিক ধারণা করা হচ্ছে,ওই নারী আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। তবে আত্মহত্যার সঙ্গে পারিবারিক কলহেরও সম্পর্ক থাকতে পারে।