শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিকদের লুকোচুরি খেলা বরদাস্ত করা হবে না -সিটি মেয়র

প্রকাশিত: 8:13 AM, June 21, 2020

হাফিজুর রহমান স্টাফ রিপোর্টার
উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ড এলাকায় লকডাউন কার্যকরের চতুর্থ দিন গতকাল ২০ জুন শনিবার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে যান সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। মেয়র ওয়ার্ড এলাকার বিভিন্ন সড়ক পরিদর্শন করে ঘোরাঘুরি করা এলাকাবাসীকে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতামুলক বিভিন্ন নির্দেশনা প্রদান করেন। এসময় তিনি ওয়ার্ড কার্যালয় সংলগ্ন রাস্তায় মুখ খোলা অবস্থায় এক মোটর সাইকেল আরোহীকে দেখতে পেলে স্বেচ্ছাসেবকদেরকে তার ছবি তুলে রাখার নির্দেশ দেন। আগামীতে এই মোটর সাইকেল আরোহীকে রাস্তায় দেখা গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

 

মেয়র এসময় উপস্থিত গণমাধ্যম কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, লকডাউন চলাকালীন সময়ে খোলা রাখা শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদেরকে কর্মস্থলে উপস্থিত হওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে বলে আমাদের কাছে অভিযোগ এসেছে। কর্তৃপক্ষ তাদেরকে চাকরিচ্যুত করা, বেতন বঞ্চিত করার হুমকি দিচ্ছে। এতে করে চাপে থাকা শ্রমিকদেরকে বাধ্য হয়ে কাজে যোগদান করতে হচ্ছে। শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিকরা আমাদেরকে বলছেন এক কথা। তারা আমাদেরকে শতভাগ স্বাস্থ্য বিধি মেনে কারখানা খোলা রাখা,লকডাউন এলাকায় বসবাসকারী শ্রমিকদেরকে সাধারণ ছুটির আওতায় রাখার কথা দিয়েছিলেন। আর বাস্তবে করছেন উল্টোটা। তারা আমাদের সাথে লুকোচুরি খেলছেন। এসব বরদাস্ত করা হবে না।

 

মেয়র বলেন, উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ড এলাকার ছয় হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদানের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। লকডাউনের প্রথম দিনই দুই হাজার পরিবারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় কাউন্সিলর গত দুই দিনে প্রায় ৪৫০ পরিবারে এই সহায়তা বিতরণ করেছেন।

 

এলাকায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, গত ১৮ জুন আইইডিসিআরের পক্ষ থেকে দুই জন চিকিৎসককে পাঠানো হয়েছে লকডাউন এলাকার স্বেচ্ছাসেবকদেরকে প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য। আগামীকাল রবিবার থেকে স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ শুরু হবে। এক ওয়ার্ডের ২০ জন করে তিন ওয়ার্ডের মোট ৬০ জন স্বেচ্ছাসেবককে এই প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। আক্রান্ত ব্যক্তিদের কনটাক্ট ট্রেসিং করা, নমুনা সংগ্রহকারীদেরকে সহায়তা করা, লকডাউন শতভাগ বাস্তবায়নে জনগণকে উদ্বুদ্ধকরণসহ নানামুখী কাজ করবে এই স্বেচ্ছাসেবক দল। তবে সংগৃহীত নমুনার যাতে নিয়মিত পরীক্ষা কার্যক্রম গতিশীল হয় সে ব্যাপারে স্বাস্থ্য দপ্তরকে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে। দিনের পরীক্ষার ফলাফল দিনে প্রকাশে সংশ্লিষ্টদেরকে আরো সক্রিয় হওয়ার জন্য তিনি নির্দেশনা দেন। এসময় কাউন্সিলর ড. নিছার উদ্দিন আহমদ মঞ্জু,সংরক্ষিত কাউন্সিলর আবিদা আজাদসহ এলাকায় দায়িত্বপালনকারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।