সাহসী সন্তানেরাই ছাত্রলীগ করেন বললেন আব্দুল কাদের সহ-সভাপতি শিবগঞ্জ শাখা

প্রকাশিত: 7:56 PM, April 7, 2021

স্টাফ রিপোর্টার,সৌরাব আলী।।
প্রাচীন বাংলার প্রথম সার্বভৌম বাঙালি নৃপতি শশাঙ্কের রাজধানী গৌড় শহরে,আলাউদ্দীন হোসেন শাহের আমলে নির্মিত স্থাপত্য ছোট সোনামসজিদের অদূরে,বাংলাদেশের আমের রাজধানী খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নে জম্ম গ্রহণ করে হালের জনপ্রিয় ছাত্রনেতা মোঃ আতিকুল ইসলাম (আতিক বাবু)।

 

আতিক ছোট থেকেই বড় কর্তাবাবুদের মত পোশাক পরিচ্ছদে একটু বেশি পরিপাটি ছিলো।বর্তমানে যেটাকে আমরা ফ্যাশন সচেতন বলি।সংগত কারণেই তাকে সবাই আতিক বাবু বলেই ডাকতো। বিনোদপুরে আওয়ামীলীগের যাওয়া মিছিলে ৮-১০ বছর বয়সের একটি শিশু ঢুকে পরে। সবার সাথে সাথে সেও জয় বাংলা স্লোগান তুলে।বিনোদপুর বাজারে আওয়ামীলীগের মিছিলে ৮-১০ বছরের ঢুকে যাওয়া সেই দিনের সেই জয় বাংলা বলা শিশুটিই আজকের আতিক।

 

আতিক ছোট থেকেই সংস্কৃতি ও ক্রীড়া মনা। নিজ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠা করেন “বিনোদপুর যুব সমাজ” । যার কার্যক্রম এখনো চলমান। এলাকার যুব সমাজ যাতে অপসংস্কৃতি আর মাদকের করাল গ্রাসে পতিত না হয় তার জন্য কাজ করে স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠনটি। খেলাধুলা,পাড়া মহল্লায় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্যোগেও কাজ করে সংগঠনটি।বাংলাদেশের জাতীয় দিবস গুলোতে থাকে স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতি।

 

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করা আতিক ছাত্রলীগে তার সুদীর্ঘ পথ চলা।এই পথ চলা খুব একটা সহজ ছিল না।বিভিন্ন সময় ত্যাগ করতে হয়েছে বিভিন্ন কিছু। হয়রানি হতে হয়েছে নানাভাবে। হতাশ হয়েছেন তবে থেমে যাননি।পরতে হয়েছে চরম আর্থিক কষ্টে।অনেক ছোট ভাইকে দেখতে গিয়ে নিজের পকেটেই খাবার টাকা থাকেনি।প্রোগ্রামে যাওয়ার টাকা থাকতো না তবুও আতিক দমে যায় নি।আতিক রা দমে যায় না। সমানতালে সংগ্রাম করে এগিয়ে গিয়েছেন।

 

যে সময় প্রেয়সীর আলিঙ্গন পেতে অনেকেই ব্যস্ত ঠিক সেই সময় আতিক খুঁজে নিয়েছে রাজপথ।নানা চরায় উতরাই পার করে আতিক মনে প্রাণে বঙ্গবন্ধু আদর্শ লালন করে ছাত্র রাজনীতি করে গেছেন -যাচ্ছেন।

 

কতটা ভিতরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সমুজ্জ্বল আর দূরদর্শিতা থাকলে একজন ছেলে ২০১৩ -২০১৪ সালের জামায়াত বিএনপির তাণ্ডবের সময় পুরো উপজেলার নেতাকর্মীকে একসাথে করার জন্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, শিবগঞ্জ উপজেলা শাখা ব্যানারে আয়োজন করেন “বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্ট”। যার চূড়ান্ত পর্বের খেলা অনিবার্য কারণ বশত এখনো বাকি আছে।হয়তো শীঘ্রই শেষ করবে।একটি খেলা শুধু উপজেলা নই পুরো জেলাকে একসাথে করতে পেরেছিলো।সেদিন ধ্বংসযজ্ঞ নই সম্প্রীতির ফুটবল খেলায় সবার মাঝে ধ্বনি প্রতিধ্বনিত হয়েছিল।

 

করোনা প্রাক্কালে ব্যক্তি উদ্যোগে বিভিন্ন এলাকায় অসহায়দের মাঝে উপহার সামগ্রী পৌঁছে দেন।বাংলাদেশের পরিবেশে সবুজের যে বিপ্লব ঘটানোর অঙ্গীকার তা বাস্তবায়নে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগকে সাথে নিয়ে প্রতি উপজেলায় বৃক্ষরোপণ করে বেড়িয়েছেন। সকল নেতাকর্মীকে আহ্বান জানিয়েছেন গাছ লাগানোর জন্য। ত্যাগ এবং নিজ যোগ্যতায় উঠে আসা আজকে আতিক দায়িত্ব পালন করছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উপ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক হিসাবে, সাথে সাথে দায়িত্ব পালন করছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সহ-সভাপতি হিসাবেও।আতিকরা কষ্ট করেই উঠে আসে। আতিক সবার মাঝে থাক,প্রিয় আতিক ভাই হয়েই থাক। অতি উৎসাহে যেন হারিয়ে না ফেলি। আতিক এবং আতিকদের জন্য শুভ কামনা রইলো,,,

মোহাঃ আব্দুল কাদের
সহ-সভাপতি
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
শিবগঞ্জ উপজেলা শাখা।