শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৯:৩৩ পূর্বাহ্ন
ব্র্যাকিং নিউজ :
ছাতক সিমেন্টকারখানায় ৮৯২ কোটি টাকার প্রকল্প টাকা আত্মসাৎ ও হরিলুটে বিশাল সিন্ডিকেট। গফরগাঁওয়ে ফেসবুকে আপত্তিকর পোষ্ট ভাইরাল হওয়ায় গলায় দড়ি দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা দোয়ারাবাজারে মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেনের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করোনায় জেলাপ্রশাসক রাজশাহীর বরাদ্দকৃত চাউল বাঘা পুজা উদযাপন পরিষদের মাধ্যেমে বিতরন ১ম দিনে চলমান লকডাউন বাস্তবায়নে সরেজমিন অভিযান তদারকি করেন-জেলা প্রশাসক ময়মনসিংহে রাষ্ট্র্রীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেনের দাফন সম্পন্ন সাপাহারে কঠোরতম বিধি-নিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে প্রশাসনের অভিযান ছাতকে নামাজি শিশু-কিশোরদের মধ্যে বাইসাইকেল বিতরণ “লকডাউনে কঠোর অবস্থানে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা প্রশাসন” রাজশাহীতেও শুরু হয়েছে কঠোর বিধি-নিষেধ

মোংলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার যেন স্বপ্নপুরী

আলী আজীম, বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১

বাগেরহাটের মোংলায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে ভূমি ও গৃহহীন ৫০টি পরিবারের জন্য ঘর তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এসব ভূমি ও ঘর উপকারভোগীদের বুঝিয়ে দেওয়ার কার্যক্রম আগামী রবিবার (২০ জুন) প্রধানমন্ত্রী ২য় পর্যায়ে নির্মিত ঘর ভূমিহীন ও গৃহহীনদের নিকট হস্তান্তর করবেন।

এদিকে অপেক্ষার প্রহর গুণছে প্রধানমন্ত্রী উপহার এসব পাকা ঘর পাবেন যেসব গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারগুলো। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়ানো মানুষগুলো জায়গাসহ নতুন ঘর পাবে এমন আনন্দে অনেকেই আত্মহারা।

দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘর নির্মাণ সম্পন্ন করার জন্য বিরামহীন কাজ করে যাচ্ছে উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

এর মধ্যে ঘরের কাজ পরিদর্শন করেছেন বাগেরহাট-৩ এর মাননীয় সাংসদ ও পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি এবং বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান।

“আশ্রয়নের অধিকার-শেখ হাসিনার উপহার” এই স্লোগান নিয়ে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় মোংলা উপজেলায় ২য় পর্যায়ে ৫০টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে।

সকল ঘরের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।শেষ মুহুর্তে চলছে রং এর কাজ। খুব অল্প সময়ের মধ্যে এ কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন মোংলা উপজেলা প্রশাসন।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, এই প্রকল্পের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রতিটি বাড়ি নির্মাণ করা হয় কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়ে ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা ব্যয় প্রতিটি বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে।
দ্বিতীয় পর্যায়ের ঘর গুলির ডিজাইনও একটু দৃষ্টিনন্দন ও মনমুগ্ধকর ভাবেই গড়ে তোলা হয়েছে।

৪৩৫ বর্গফুটের প্রতিটি ঘরে রয়েছে দুটি বেড রুম, টয়লেট, রান্নাঘর, ও একটি বারান্দা। ঘর ও আশপাশের জমি মিলিয়ে দুই শতক জমি দেওয়া হবে ভূমিও গৃহহীন প্রতিটি পরিবারকে। টিনশেডের এই ঘরে একটি পরিবার স্বাচ্ছন্দে বসবাস করতে পারবে।

মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কমলেশ মজুমদার জানান, আমরা সরকারের খাস জমিতে ভূমি ও গৃহহীন হতদরিদ্রদের জন্য ৫০টি ঘর নির্মাণ করেছি। প্রতিটি ঘরের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। কাজের মান যেন ঠিক থাকে সেজন্য সার্বক্ষণিক তদারকি করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ঘর দেওয়ার জন্য উপকারভোগী নির্বাচনের ক্ষেত্রেও আমরা সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করেছি। যারা প্রকৃত ভূমিহীন তারাই এই সুবিধার আওতায় এসেছেন। খুব শিগগিরই তাদের মধ্যেই ঘরের দলিল ও চাবি হস্তান্তর করা হবে বলে জানান মোংলার এ কর্মকর্তা।

এই জাতীয় আরোও নিউজ দেখুন

ফেসবুকে আমরা আমাদের ফলোও করুন

© All rights reserved © 2018-2021 VORERCOMILLA.COM
ডিজানাইনার বাই এ,কে আজাদ
themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!