ঢাকাSaturday , 3 July 2021

এন্টি টেররিজম ইউনিটের সহায়তায় করিমগঞ্জ থানা পুলিশ কর্তৃক ডিজিটাল প্রতারক চক্রের ২ সদস্য গ্রেফতার।

Link Copied!

মোঃ জনি হোসেন করিমগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
মানুষকে কখনো মোবাইলে মিনিট কখনো ইন্টারনেটে ডাটা, কখনো কবিরাজ, কখনো লটারি জেতার অর্থ দেয়ার নাম করে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের দুই সক্রিয় সদস্যকে এন্টি টেররিজম ইউনিট এর সহায়তায় গ্রেফতার করেছে করিমগঞ্জ থানা পুলিশ।

 

গ্রেফতাররা হলেন মোঃ খসরু মিয়ার ছেলে আজমির (২৬),শাহজাহান মিয়ার ছেলে সাগর (২২) উভয় ইসলামপাড়া,থানা করিমগঞ্জ কিশোরগঞ্জ।শনিবার (৩ জুলাই )‌ কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার, মাশরুকুর রহমান খালেদ (বিপিএম) বারের নির্দেশনায়, বাংলাদেশ এন্ট্রি টেরিজম ইউনিটের সহায়তায় সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার করিমগঞ্জ সার্কেল এএসপি ইফতেখারুজ্জামান বুদ্ধিমত্তা, অক্লান্ত পরিশ্রম চেষ্টায় অনলাইন প্রতারক চক্রের দলনেতা,ভুয়া কবিরাজ,নগদ ও বিকাশের মাধ্যমে প্রতারণা কারী প্রতারক চক্রের অন্যতম আসামি আজমির (২৬) পিতা মোঃ খসরু সাগর (২২) পিতা শাহজাহান মিয়া করিমগঞ্জ থানাধীন জাফরাবাদ এলাকা গ্রেফতার করা হয়েছে।সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার করিমগঞ্জ সার্কেল এএসপি ইফতেখারু জ্জামান জানান, দীর্ঘদিন ধরে একটি অসাধু ডিজিটাল প্রতারক চক্র মোবাইলে মিনিট ইন্টারনেট ডাটা প্যাক দেয়ার নামে নিরীহ লোক জনদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া আবার কখনো কবিরাজি চিকিৎসা দেয়ার নামে লোক জনের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া আবার কখনো লটারির ড্র জেতার নাম করে সেই ড্রয়ের টাকা উত্তোলনের জন্য সরল নিরীহ লোকজন বোকা বানিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া,ও ফেসবুকে বিভিন্ন আইডি পেইজ খুলে অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন লোভনীয় অফার দিয়ে সহজ সরল ভুক্তভোগী দেরকে আকৃষ্ট করে প্রতারণার মাধ্যমে বিকাশ ও নগদের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থান থেকে অভিযোগ পাওয়ার প্রেক্ষিতে মনিটরিং চালিয়ে এন্টি টেররিজম ইউনিটের সহায়তায় তাদেরকে শনাক্ত করে গ্রেফতার করা হয়।সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার করিমগঞ্জ সার্কেল এএস পি ইফতেখারুজ্জামান জানান,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে করিমগঞ্জ উপজেলা করিমগঞ্জ থানা পুলিশের একটি টিম অভিযান চালিয়ে চক্রের মূল হোতা আজমির (২৬) পিতা: মোঃ খসরু মিয়া, সাগর (২২) পিতা: শাহজাহান মিয়া, উভয় সাং: ইসলামপাড়া,থানা করিমগঞ্জ জেলা কিশোরগঞ্জকে গ্রেফতার করেছে করিমগঞ্জ থানা পুলিশ।

 

তিনি আরো বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চক্রটির আরো সদস্য রয়েছে বলে জানান গ্রেফতারকৃত আসামিরা যাদেরকে দ্রুত সনাক্ত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয় ও আসামীদেরকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।বিষয়টি এলাকাবাসী সহ সর্বমহলে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। জনমনে স্বস্তি ও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে,পুলিশের এ ধরনের তৎপরতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

error: Content is protected !!